মুসলমানদের অনগ্রসরতার কারণ

মূল: আলিয়া ইযযেতবেগভিচ
অনুবাদ: বুরহান উদ্দিন

একই স্থানে গুরপাক খাওয়া থেকে,পরনির্ভরশীলতা, দারিদ্রতা এবং অনগ্রসরতা থেকে কি আপনারা মুসলমানদেরকে উদ্ধার করতে চান?
নতুন করে সামনের দিকে, সম্মানের সাথে এবং আলোর পথে নিজেদের ভবিষ্যতকে সুন্দর করে সাজাতে চান?
নৈতিকতা, প্রতিভা এবং সাহসিকতাকে সকল শক্তি দিয়ে পুনুরুজ্জীবিত করতে চান?
তাহলে এই পথে আমাদেরকে নিয়ে যেতে সক্ষম সে পথের দিকে আপনাদেরকে সুনির্দিষ্ট পথের সন্ধান দিতে চাই:
বাক্তিগত, পারিবারিক এবং সামাজিক জীবনের সকল স্তরে ইসলামী চিন্তা চেতনাকে নতুন করে সাজানো এবং ইন্দোনেশিয়া থেকে মরক্কো পর্যন্ত ইসলামী ঐক্য গড়ে তুলতে হবে।
এই লক্ষ্য অনেক দূর এবং অবাস্তব মনে হতে পারে কিন্তু প্রচেষ্টা চালালে এটা অবশ্যই সম্ভব এবং এটা আমাদের নাগালের বাহিরে নয় । অপরদিকে অন ইসলামিক প্রোগ্রাম গুলুকে অনেক কাছের এবং আমাদের লক্ষ্যের অনুকূলে মনে হয় কিন্তু ঐ সকল কিছু মুসলিম বিশ্বের জন্য একটি আকাশ কুশুম কল্পনা মাত্র। কারণ সেগুলু অসম্ভব জগতের বিষয়।
ইতিহাস আমাদেরকে একটি বিষয় অত্যন্ত সুস্পষ্ট ভাবে এটা দেখায় যে: মুসলমানদের মধ্যে নতুন করে শিহরন, শৃঙ্খলা, ইলহাম এবং চেতনা সৃষ্টি করতে পারবে একমাত্র ইসলাম। ১৯৫০ র দশকে শুধুমাত্র কয়েক হাজার সত্যিকারের মুসলিম মুজাহিদ ইংরেজ বাহিনীকে সুয়েজ খাল থেকে বিতাড়িত করতে সক্ষম হয়েছিল। অপরদিকে আরব বর্ণবাদী শাসক গোষ্ঠীর সেনাবাহিনী ইসরাইলের বিরুদ্ধে তিন বার পরাজয় বরন করে। ইসলামী দেশ হিসাবে তুরস্ক সমগ্র দুনিয়ার শাসন কর্তা ছিল। ইসলাম গ্রহনের পরে কোন বাক্তি বা জনগোষ্ঠী অন্য কোন আদর্শকে ধারন করে বেঁচে থাকতে কিংবা মরতে পারে না। একজন মুসলমানের নাম যাই হোক না কেন, যে কোন সম্রাট অথবা হুকুমদার একটি জাতির জন্য, দলের জন্য অথবা এর সাথে সাদৃশ্য কোন কিছুর জন্য নিজেকে কুরবানী করার কথা চিন্তাও করতে পারে না। সত্যিকারের ইসলামী চিন্তা মতে সে এখানে মূর্তি পূজা কিংবা আল্লাহ ছাড়া অন্য কিছুর অস্তিত্ব আবিষ্কার করতে পারবে। মুসলমান কেবল মাত্র আল্লাহ তালার নামে এবং ইসলামের বিজয়ের জন্য মরতে পারে অথবা যুদ্ধ থেকে পলায়ন করতে পারে।
এই জন্য মুসমানদের পশ্চাদপদতার মূল কারণ হল ইসলামের অনুপস্থিতি এবং সেই পথ পাড়ি দেওয়ার জন্য মুসলিম বিশ্ব আজ প্রস্তুত নয়। সেগুলু মুলত মুসলমানদের মধ্যে আধ্যাত্মিকতার অনুপস্থিতির একটি প্রকাশ মাত্র।
এই বিষয় গুলেকে আল্লাহ তালার পক্ষ থেকে আমাদের কর্মের ফল হিসাবে গ্রহন করে সুস্পষ্টভাবে একথা বলতে চাই যে মুসলিম বিশ্ব ইসলাম বাতিত এবং ইসলাম বিরোধী হয়ে কক্ষনোই নবচেতনায় উজ্জীবিত হতে পারবে না।
ইসলাম, মানুষের সাথে ইসলামের সম্পর্ক, পৃথিবীতে মানুষের অবস্থান, মানব জীবনের উদ্দেশ্য, মানুষের সাথে আল্লাহর সম্পর্ক এবং মানুষের সাথে মানুষের সম্পর্কের ব্যাপারে মনোভাব, মুসলিম জনগনের অবস্থার উন্নতির জন্য সত্যিকারের সমাধান হিসাবে চিরন্তন এবং অপরিবর্তনীয় চরিত্র, দর্শন, চিন্তা এবং রাজনৈতিক মতাদর্শ হিসাবে অবশিষ্ট আছে।
এটা সুস্পষ্ট যে আমাদের সামনে বিকল্প কিছু নেই।হয়ত ইসলামী রেনেসাঁরজন্য সংগ্রাম করা অথবা অবক্ষয় ও অবনতি মেনে নেওয়া। মুসলমানদের জন্য তৃতীয় কোন পথ নেই।

Leave a Reply