যে শাহাদাতের ঘটনায় রাসূল (সাঃ) অবাক হয়েছিলেন…(!)

রাসূল (সাঃ) এর জীবনে খুব কমই ঘটনা আছে,যেগুলা ঘটার কারনে তিনি খুব অবাক হয়েছিলেন!সেই রকম একটি অবাক করা ঘটনা ঘটেছিল উহুদের যুদ্ধে!

উহুদের যুদ্ধের সময় কাফিররা চারদিক থেকে মদীনা ঘেরাও করে ফেলে।এসময় আল্লাহর রাসূল মদীনায় বসবাস কারী ইহুদী খৃষ্টানদের যুদ্ধে অংশ নিতে আহব্বান করেন।

কারন মদিনায় ইসলামী রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা হবার পর,ইহুদীদের সঙ্গে মুসলিমদের একটি চুক্তি হয়েছিল।আর সেই চুক্তিতে ছিল,মদিনা বহিঃশত্রু দ্বারা আক্রান্ত হলে মুসলিমদের সাথে ইহুদী খৃষ্টানরাও যুদ্ধে অংশ নিয়ে তাদেরকে প্রতিরোধ করবে।

সেই চুক্তি মোতাবেক মুসলিমরা তাদেরকে যুদ্ধে অংশ নিতে আহব্বান করলে তারা বলে,আজ তো শনিবার।আমাদের ধর্মীয় দিন।আমরা কি করে যুদ্ধ অংশ গ্রহন করতে পারি(!)

তখন ইহুদীদের মধ্যকার সালাবা গোত্রের এক তরুন মুখাইরিক বলেন,তোমাদের এই যুক্তি গ্রহন যোগ্য নয়।আমি যুদ্ধে চললাম।

মুখাইরিক যুদ্ধে অংশ গ্রহন করলেন।কাফিরদের সঙ্গে প্রচন্ড সংঘর্ষের এক পর্যায়ে তিনি মারাত্নক আহত হলেন।প্রান বায়ু প্রায় যায় যায় অবস্থা।

মুখাইরিকের গোত্রের লোকেরা তাঁর খোজ করতে শুরু করলে,তারা তাঁকে যুদ্ধে নিহতদের মাঝে আহত অবস্থায় খুঁজে পায়।

তার গোত্রের লোকেরা জিজ্ঞেস করে,তুমি এখানে কি করছো?তুমি তো ইসলাম পছন্দ করতে না!তুমি কি গোত্র প্রীতির কারনে যুদ্ধে করতে এসেছো নাকি ইসলামের আকর্ষনে যুদ্ধ করতে এসেছো?
মুখাইরিক ক্ষীন কন্ঠে জবাব দিলেন,“আমি ইসলামের আকর্ষনে যুদ্ধ করতে এসছি।আমি সত্যের সন্ধান পেয়েছি।”এ কথা বলার কিছুক্ষনের মধ্যেই মুখাইরিক ইন্তোকাল করেন।(ইন্নালিল্লাহ..)

তাঁর মৃত্যুর সংবাদ শুনে,আল্লাহর রাসূল (সাঃ) বললেন,মুখাইরিক হলেন ইহুদীদের মধ্যে সবচেয়ে উত্তম ব্যক্তি।(কারন তখন পর্যন্ত রাসূল (সা) পুরো ঘটনা জানতেন না)

হযরত হুসাইন ইবনে আব্দুর রহমান (রাঃ) বলেন,“আমি মাহমুদ ইবনে আসাদ (রাঃ) কে জিজ্ঞেস করেছিলাম মুখাইরিক কি ধরনের মানুষ ছিলেন?
জবাবে তিনি বলেছিলেন,মুখাইরিক প্রথমে ইসলামকে অপছন্দ করতো।কিন্তু নবী করীম (সাঃ) যেদিন উহুদের যুদ্ধের জন্য আহব্বান করলেন, সেদিন থেকে তিনি ইসলামের মর্মার্থ অনুধাবন করতে শুরু করলেন।এরপর তিনি ইসলাম গ্রহন করে উন্মুক্ত তরবারী নিয়ে উহুদের ময়দানে ছুটে গিয়েছেন।এরপর ইসলামের শত্রুদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে তিনি শহীদ হয়েছেন।

সব ঘটনা শুনে রাসূল (সাঃ) অবাক হয়েছিলেন।কারন তিনি মুখাইরিকের ইসলাম গ্রহনের কথা জানতেন না।এরপর তিনি বলেন,অবশ্যিই সে জান্নাতের অধিবাসী।

হযরত আবু হুরায়রা (রাঃ) অন্যান্য সাহাবাদেরকে বলতেন,“আমাকে তোমরা বলতে পারো কোন সে ব্যক্তি যে জান্নাতে প্রবেশ করবে,অথচ সে জীবনে এক ওয়াক্তও নামায আদায় করেনি? অন্যান্য সাহাবীরা জবাব না দিয়ে তাঁকেই প্রশ্ন করলেন, কে সেই ভাগ্যবান ব্যক্তি? হযরত আবু হুরায়রা জবাবে বলেছিলেন,সেই ভাগ্যবান ব্যক্তিটির নাম উসাইরিম আমর ইবনে সাবিত। উসাইরিম আমর ইবনে সাবিত হল মুখাইরিমের ইসলাম গ্রহন করার পর নতুন নাম।সুবহান আল্লাহ।[সীরাতে ইবনে হিশাম]

আল্লাহর রাস্তায় যারা অকাতরে জীবন বিলিয়ে দিতে পারে,সত্যি তারা কতোই না ভাগ্যবান।

Leave a Reply