5 Responses

  1. Mohammed Lokman
    Mohammed Lokman at |

    জামায়াতের ১৯৭১ এর ভূমিকা অবগত হয়ে মনেপ্রাণে মেনে না নিয়ে কেউ শিবিরের সদস্য এবং কোন সিটির সভাপতি হওয়ার নজির নেই। তাছাড়া জামায়াতের ৭১’র অবস্থান প্রতিটি কর্মীর নিকট এমনকি জনগণের নিকটও পরিস্কার, যার প্রতিফলন ঘটেছে বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকীর ‘জামায়াত ৪০ বছর আগে যা বুঝেছিল তা আমরা বুঝেছি ৪০ বছর পর’ কমেন্টের মাধ্যমে।
    নানা কারণে দলের মধ্যে ভাঙ্গন এবং উপদল তৈরী হতে পারে। এক্ষেত্রে দলের মূল দায়িত্বশীলগণ দলকে ভাঙ্গনের হাত থেকে রক্ষা করার জন্য চেষ্টা করেন তেমনি ভিন্নমত পোষণকারীরাও তাদের আপ্রাণ চেষ্টা অব্যাহত রাখেন ঘটনা প্রবাহ নিজেদের পক্ষে নেয়ার জন্য। দোষ-গুণ খুঁজতে গেলে দু’পক্ষেরেই বের হবে- নিঃসন্দেহে।

    আব্দুল কাদের বাচ্চু ভাইয়দের সাথে শুধুমাত্র জামায়াতের নাম এবং ৭১নিয়ে সমস্যা তৈরী হয়েছিল তা আমি বিশ্বাস করি না। ইগো,নেতৃত্ব পরিবর্তন এবং অন্য কিছুকে ঢাকা দেয়ার জন্য পরবর্তীতে ইস্যু দু’টো উত্তাপন হয়ে থাকতে পারে।
    পরবর্তীতে জনাব আহমদ আব্দুল কাদের এবং প্রিয় রেজা ভাই’র জামায়াত নেত্রীবৃন্দের সাথে সাক্ষাত এবং নিজেদেরকে ইসলামের উপরই প্রতিষ্ঠিত রাখার প্রয়াস থেকে প্রতীয়মান হয় যে, জামায়াতের নেত্রীত্বে বাংলাদেশে ইসলাম কায়েম হলে তার নাখোশ নন। তারা জামায়াতকে ভালোবাসেন বলেই বিভিন্ন সময় জামায়াতের ভুলত্রুটি তুলে ধরে সংশোধনের চেষ্টা করেন।
    আমি ব্যাক্তিগতভাবে এখনো রেজা ভাইকে ভালোবাসি যেমনটি ছাত্রজীবনে বাসতাম। তবে আমি এখনো জামায়াত ছাড়া কোন বিকল্প চিন্তা করি না বাংলাদেশের বর্তমান সময় পর্যন্ত।

    Reply
  2. মুহাম্মদ তানজিল হোসেন

    সাক্ষাতকারটি পড়ে খুব ভালো লাগলো। প্রাক্তন ভাইয়েরা যদি এ ভাবে নিয়মিত আমাদেরকে একেকটা সাক্ষাতকার উপহার দেন তাহলে আমাদের জড়তা হ্রাস পাবে।

    Reply
  3. আবু সাইফ
    আবু সাইফ at |

    আসসালামু আলাইকুম…….

    যথার্থই বলেছেন-
    “””আমি স্পষ্ট ভাষায় বলবো, আমার মতে দুটো প্রসঙ্গ বাংলাদেশের রাজনীতির জন্যে অপরিহার্য, অর্থাৎ ‘নান-নেগোশিয়েবল’। একটি ইসলাম এবং অপরটি মুক্তিযুদ্ধ। কোন রাজনৈতিক দল এর কোন একটির প্রতি উন্নাসিকতা বা বিরোধিতা করলে বাংলাদেশের জনগণ তাদের গ্রহণ করবে না।”””

    Reply
  4. আল মাহদী
    আল মাহদী at |

    Mohammad Lokman,পরবর্তীতে জনাব আহমদ আব্দুল কাদের এবং প্রিয় রেজা ভাই’র জামায়াত নেত্রীবৃন্দের সাথে সাক্ষাত এবং নিজেদেরকে ইসলামের উপরই প্রতিষ্ঠিত রাখার প্রয়াস থেকে প্রতীয়মান হয় যে, জামায়াতের নেত্রীত্বে বাংলাদেশে ইসলাম কায়েম হলে তার নাখোশ নন। তারা জামায়াতকে ভালোবাসেন বলেই বিভিন্ন সময় জামায়াতের ভুলত্রুটি তুলে ধরে সংশোধনের চেষ্টা করেন।>>
    >>জামায়াত বা আহলে সুন্নাত ওয়াল জামায়াত কি বিশ্বে কোথাও ইসলাম প্রতিষ্টা করতে পেরেছে?আমরা দেখতে পাচ্ছি ১৯৭৯ সালে ইমাম খোমেনীর(রঃ) অধীনে ইরানে একটি কুরানী রাষ্ট্র প্রতিষ্টা হ্যেছে।ইরানের সংখ্যাগরিষ্ট মুসলামেন্রা কুরান ও নবী পরিবারের(আঃ) অনুসারী,যাদেরকে আমরা ১২ ইমামিয়া শিয়া হিসাবে জানি।তাহলে দেখা যাচ্ছে,আক্কিদাগত বিশাল পার্থক্যের কারনে তথাকথিত আহলে সুন্নাত ওয়াল জামায়াত ইসলাম প্রতিষ্টায় ব্যররথ,আর শিয়ারা ইসলাম প্রতিষ্টায় সফল।

    Reply
  5. Ahmad
    Ahmad at |

    Jonab Mushkil Ahsan,

    I am appalled to read your derogatory comments regarding the the writings of Farid Ahmad Reza. You have asked for the role model movement, you ought to be aware of what movement Fard Ahmad Reza, Ahmad Abdul involved with. Rightly, you are aware of as evident by one of your comments regarding Khilafat Majlis. Jamaat Shibir does not represent Islamic Movement in Bangladesh, they represent only part of it. Your denial acknowledgement of any other Islamic movement existing in the country is evident of the disease Jamaat/Shibir has ‘Ham say bora kownh hay’. Blind loyalty to any group should not refrain one from seeing the truth and seeing one’s own folly.
    Role model Islamic movement developed by Ahmad Abdul Quader and others who do not agree with Jamaat and their secular politics is called Khilafat Majlis.

    Reply

Leave a Reply